• ঢাকা, বাংলাদেশ সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
  • [কনভাটার]

বারহাট্টায় সরকারের আর্থিক সহায়তা পেল ১৬ হাজার ৯শত ৯৬ পরিবার

আজিজুল হক ফারুক, বারহাট্টা / ৫৬ বার পঠিত
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৩ মে, ২০২১

নেত্রকোণার বারহাট্টায় পবিত্র ইদ-উল-ফিতর, করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ফসলহানীর কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ১৬ হাজার ৯শত ৯৬ পরিবারকে নগদ ১ কোটি ৬৫ লক্ষ ৪১ হাজার ২০০ টাকা সহায়তাদান করেছে সরকার। উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মোরশেদ আজ বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানান।

তিনি বলেন, পবিত্র ইদ-উল-ফিতর উপলক্ষে সরকারের জিআর কর্মসূচীর আওতায় ৩ হাজার ৫০০ জনের প্রত্যেককে ৫০০ টাকা হারে ১৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা এবং ভিজিএফ কর্মসূচীর আওতায় ৮ হাজার ৭৫৬ জনের প্রত্যেককে ৪৫০ টাকা হারে ৩৯ লক্ষ ৪০ হাজার ২০০ টাকা, প্রদান করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, করোনান প্রাদুর্ভাবের কারণে কর্মহীন হয়ে পরা ও নিম্নআয়ের ৭৪০টি পরিবারের মাঝে নগদ ৮ লক্ষ ৫১ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। তম্মদ্ধে ২৯০ জন মোটরযান শ্রমিকের প্রত্যেককে ২ হাজার ৫০০ টাকা হারে ৭ লক্ষ ২৫ হাজার ও নিম্নআয়ের ৪৫০ জন নারী-পুরুষের প্রত্যেকের মাঝে ২০০ টাকা হারে ১ লক্ষ ২৬ হাজার টাকা বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে।

এছাড়া করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ১ হাজার ৭০০ কৃষক ২ হাজার ৫০০ টাকা হারে নগদ ৪২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা সহায়তা পেয়েছেন। সরাসরি মন্ত্রণালয় থেকে কৃষকদের মোবাইলের হিসাবে এই টাকা পাঠানো হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, প্রাকৃতিক দূর্যোগে ফসলহানীর কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ২ হাজার ৩০০ প্রান্তিক কৃষকের নগদ অথবা বিকাশ নাম্বারে ২ হাজার ৫০০ টাকা হারে মোট ৫৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা প্রেরণ করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাইমিনুর রশিদ বলেন, গত ৪ এপ্রিল গরম হাওয়া ও ৯এপ্রিল শিলা-ঝড়ের তান্ডবে উপজেলার চিরাম, আসমা ও সিংধাসহ ৭ ইউনিয়নের উঠতি বোর ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়। গরম হাওয়ার কারণে ২ হাজার ৭০০ ও শিলা-ঝড়ে ৩ হাজর ৫০০ একর জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। চলতি মৌসুমে উপজেলায় মোট ৩৭ হাজার একর জমিতে বোর চাষ করা হয়।

জানা যায়, চলতি মৌসুমে প্রাকৃতিক দূর্যোগে উপজেলার চিরাম, আসমা ও সিংধাসহ ৭ ইউনিয়নের উঠতি বোর ফসল বিনষ্ট হয়। এতে প্রায় ৭ হাজার কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হন। কোন কোন কৃষক সর্বশান্ত হয়ে পড়েন। সরেজমিনে পরিদর্শন শেষে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মাইনুল হক ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের সাহায্যের জন্য সরকারের কাছে দাবী জানান।

সরকারের পাশাপাশি উপজেলার বিভিন্ন ক্লাব ও ব্যক্তির পক্ষ হতেও কর্মহীন ও নিম্নআয়ের মানুষজনের মাঝে ঈদ-উপহার বিতরণ অব্যাহত আছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৮৫টি পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরনের কাজ চলছে। উপজেলার প্রত্য

ন্ত রায়পুর ইউনিয়নের তেঘরিয়া গ্রাম এলাকার ২০০ নারী-শিশুর মাঝে ঈদ-উপহার বিতরণ করেছে রয়েল নেক্সাস ক্লাব। দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা এলাকার উন্নয়নে এই ক্লাব গড়ে তুলেছে। অন্যকারো সাহায্য ছাড়াই তারা উপহার সামগ্রী ক্রয়ের টাকার ব্যবস্থা করেছে। বারহাট্টা সদর ইউনিয়নের আমঘাইল এলাকায় পদ্ম নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে ৩০০ লোকের মাঝে ঈদ-উপহার বিতরণ করা হয়েছে। আরো অনেক সংগঠণের বিতরণ কাজ অব্যাহত আছে।


এই ধরনের আরও সংবাদ

পুরাতন সব সংবাদ

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
12131415161718
19202122232425
2627282930  
       
     12
10111213141516
       
  12345
6789101112
13141516171819
2728293031  
       
  12345
6789101112
13141516171819
2728     
       
      1
16171819202122
23242526272829
3031     
   1234
       
  12345
27282930   
       
29      
       
1234567
2930     
       

বিজ্ঞাপন

error: Content is protected !!