• ঢাকা, বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ১০:১২ অপরাহ্ন
  • [কনভাটার]

ধনবাড়ীর ‌‌বৈরান নদীতে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য বাওয়া উৎসব

বিডি নিউজ বুক ডেস্ক: / ১৫৩ বার পঠিত
আপডেট : রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০

মো. ইউনুস- :: ধনবাড়ী ::

গ্রামবাংলার চিরায়ত ঐতিহ্য মাছ ধরারবাওয়া উৎসব এখনও প্রচলিত। শীতের আগমনে কার্তিকের শেষ থেকে পৌষ মাস পর্যন্ত সাধারণত এ বাওয়া উৎসব হয়ে থাকে।

এ সময় চার দিকে নদী-নালা, খাল-বিল, ডোবা-জলাশয়ে যখন পানি কমতে থাকে তখন এ বাওয়া হয়। পানি কমার ফলে মাছ আর উজাতে ও নামতে পারে না। তখনই মাছ ধরার উত্তম সময়। এই সময়ে উত্তর টাঙ্গাইলে সাধারণত এ বাওয়া বেশি হয়। মাছ ধরা যাদের নেশা ও পেশা তারা হাট বাজারে গিয়ে ঢাক-ঢোল- পিটিয়ে এবং মাইকিং করে দিন-তারিখ মতো শতশত মানুষ একযোগে উৎসবমুখর পরিবেশে মাছ ধরে থাকেন।

যার যা আছে জাল, জালি, শিপজাল, কারেন্ট জাল, ফারাংগি জাল, চাক-পলো, খাঁচা প্রভৃতি উপকরণ নিয়ে কোমরে গামছা বেঁধে নদী-নালা, খাল-বিলে নেমে পড়ে। এভাবে উৎসবমুখর পরিবেশে সবাই সারিবদ্ধভাবে এক সঙ্গে মাছ ধরাকে স্থানীয়ভাবে বাওয়াবলা হয়।

রোববার (১৫ নভেম্বর) টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীর বৈরান নদীতে এ বাওয়া উৎসব পালিত হয়। এ নদীতে মাছ ধরতে আসা আব্দুল বাছেদ মিয়া ও মো. আমজাদ হোসেনের চাক জালে বিরাট দুটি বোয়াল মাছ আটকে পড়ে। তারা বোয়াল দুটি জালে পেঁচিয়ে কাঁধে নিয়ে বাড়ি ফেরেন। আব্দুল বাছেদ মিয়া ও মো.আমজাদ হোসেনের মতো অনেকেই বোয়াল ,রুই, কাতল, পাঙাস ওসিলভার কার্প, মিনার কার্পসহ বিভিন্ন মাছ নিয়ে বাড়ি ফেরেন বাওয়াতরা।

তবে বাছেদ মিয়ার আরেক সাথী আকাশ হোসেন বাড়ি ফিরছেন খালি হাতে। তার জালে কোনো মাছ ধরা পড়েনি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাওয়াতদের কারও পলো বা জালে মাছ ধরা পড়লে সমস্বরে চলেশোরগোল। ফেরার পথে বাওয়াতরা তাদের জালে ধরা পড়া মাছ দেখিয়ে উচ্ছা্স প্রকাশ করতেও দেখা যায়।

সকাল থেকে তিন-চার ঘণ্টাব্যাপী বাওয়া উৎসবে ধরা পড়ছে বোয়াল, রুই, কালবাউশ, শোল, কাতলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। এর মধ্যে বোয়াইল ধরা পড়েছে বেশি।উত্তর টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী ও মধুপুরের বিভন্ন গ্রামে খাল-বিলও নদীতে বংশপরম্পারয় বাওয়া উৎসব প্রচালিত রয়েছে বলে জানিয়েছে ধনবাড়ী পৌর মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন।

তিনি বলেন, বাওয়াতের জালে বা পলোতে মাছধরা পড়ুক বা নাই পড়ুক, উৎসব মুখরতা গ্রামবাসীর বড় আনন্দ। আর এসব বাওয়াতের জালও পলোর শিকার মাছের স্বাদও আলাদা।


এই ধরনের আরও সংবাদ

পুরাতন সব সংবাদ

SatSunMonTueWedThuFri
15161718192021
22232425262728
293031    
       
     12
10111213141516
       
  12345
6789101112
13141516171819
2728293031  
       
  12345
6789101112
13141516171819
2728     
       
      1
16171819202122
23242526272829
3031     
   1234
       
  12345
27282930   
       
29      
       
1234567
2930     
       

বিজ্ঞাপন