ধনবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ : মোবাইলে গোপনে ভিডিও ধারণ !

ধনবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ : মোবাইলে গোপনে ভিডিও ধারণ !

অভিযুক্ত রাসেল ।

:: নিজস্ব প্রতিবেদক ::

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভন ও অন্তরঙ্গ ভিডিও ইন্টারনেটে প্রকাশের ভয় দেখিয়ে রাসেল (২০) নামে এক যুবক দফায়-দফায় ধর্ষণ করেছে এক যুবতীকে। এতে ওই যুবতী (১৮) আন্তঃসত্তা হয়ে পড়েছে। ঘটনাটি জানাজানি হয়ে গেলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। খবর পেয়ে মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) ধনবাড়ী থানা পুলিশ অভিযুক্ত ছেলে-মেয়েকে মেয়ের বাড়ী থেকে পুলিশি হেফাজতে নিয়েছে।

ঘটনাটি প্রভাবশালীরা মোটা আংকের টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার পৌর শহরের সিংগাআটা গ্রামে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পার্শ্ববর্তী গোলালপুর উপজেলার হাদিরা ইউনিয়নের হাদিরা গ্রামের সৌদি প্রবাসী আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে সিলেট পলিটেকনিকেলের ছাত্র রাসেলের সাথে ধনবাড়ী উপজেলার পৌরসভার সিংগাআটা গ্রামের জনৈক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর কলেজ পড়–য়া মেয়ের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হয়। সেখান থেকে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রেমের এক পর্যায়ে তাদের শারীরিক সর্ম্পক হয়।

আরো পড়ুন : মধুপুরে করোনা সন্দেহে নিয়ে এক জনের মুত্যু : এলাকাবাসী আতঙ্কে !

সেই ভিডিও রাসেল গোপনে মোবাইল ফোনে ধারণ করে। ওই ভিডিওকে পুঁজি করে বেশ কয়েক মাস ধরে প্রেমিক রাসেল ওই যুবতীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক করতে থাকে। শারীরিক সম্পর্কের এক পর্যায়ে ওই যুবতী অন্তঃসত্তা হয়ে পড়ে। অন্তঃসত্তার বিষয়টি ওই যুবতী রাসেলকে জানায় এবং বিয়ে করার চাপ দেয়। বিষয়টি রাসেল জানার পর থেকে নানা ধরনের তালবাহানা শুরু করে এবং রাসেল সন্তান নষ্ট করে দেয়ার পরামর্শ দেন। এ কথা শুনার পর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় রাসেল।

পরে আ্যাবোরশনে রাজি হয়ে রাসেলকে বাড়িতে আাসার জন্য বলে ওই যুবতী। সোমবার (৩০ মার্চ) রাসেল ওই যুবতীর বাড়ী আসে। বাড়িতে আসার পর যুবতীর পরিবার তাকে আটকিয়ে দেয়। এ নিয়ে এলাকায় বেশ আলোচনা চলে। সারা রাত দফায় দফায় মীমাংসার চেষ্টা করেও সমাধান হয়নি।

মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) দুপুর পর্যন্ত দফায়-দফায় ওই যুবকের প্রভাবশালী পক্ষের স্বজনরা রাসেলকে ছাড়িয়ে নিতে বৈঠকের চেষ্টা করে। অবশেষে ধনবাড়ী পৌর ভবনে শালিসী বৈঠক বসায়। শালিসী বৈঠকে মিামংশা না হওয়ায় ভূক্তভোগী পরিবার ধনবাড়ী থানা পুলিশের স্মরণাপন্ন হয়। অন্তঃসত্তা হওয়ার বিষয়টি ভূক্তভোগী মেয়ে, মেয়ের পরিবার, স্থানীয় কাউন্সিলর ও পৌর মেয়র নিশ্চিত করেছে।

আরো পড়ুন : নববর্ষের সব অনুষ্ঠান বন্ধ, ছুটি সীমিত আকারে বাড়বে: প্রধানমন্ত্রী

এ ব্যাপারে স্থানীয় কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র আব্দুল মজিদ মিন্টু এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, বিষয়টি সামাজিকভাবে ফয়সালা করার চেষ্টা করা হয়েছে। ফয়সালা না হওয়ায় ধনবাড়ী থানার ওসিকে অবহতি করা হয়েছে।

এদিকে গোপালপুর উপজেলার হাদিরা গ্রামের আজহার আলীর ছেলে এনবিআর’র পরিচালক পরিচয় দানকারী মামুন ও তার ভাই আপন মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী পৌর সভার মেয়র খন্দকার মঞ্জুরুল ইসলাম তপন বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, আজ (মঙ্গলবার ৩১ মার্চ) সকাল ১০ টায় উভয়পক্ষ আপোষ মিমাংশার জন্য আমার কাছে এসেছিলো। ঘটনাটি শোনার পর আপোষযোগ্য না হওয়ায় ধনবাড়ী থানা পুলিশকে অবহতি করা হয়েছে।

আরো পড়ুন : বিশ্বের প্রথম করোনা রোগী একজন চিংড়ি মাছ বিক্রেতা

ধনবাড়ী থানার ওসি মো. চাঁন মিয়া বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, খবর পেয়ে অভিযুক্ত ছেলে ও মেয়ে উভয়কে মেয়ের বাড়ী থেকে উদ্ধার করে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়েছে। মামলা দিলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই পোর্টালের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্ব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design BY NewsTheme
error: Content is protected !!