সর্বশেষ:
পাকিস্তানের দোসর-তাঁবেদাররা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণহত্যার স্মৃতি মুছে ফেলতে তৎপর রয়েছে : কৃষিমন্ত্রী ‘ঝাল মুড়ি বিক্রি করে জীবন চলে মর্জিনা বেগমের’ উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণে মহাদেবপুর থানা পুলিশের আনন্দ উদযাপন মহাদেবপুরে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বাংলাদেশের ঝুঁড়ি এখন খাদ্যে পরিপূর্ণ :কৃষিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে পৃথিবীতে মর্যাদার আসনে উন্নীত করেছেন : কৃষিমন্ত্রী বারহাট্টায় আগুনে নিঃস্ব পরিবার মহাদেবপুরে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির মাঝে উন্নত জাতের বকনা গরু বিতরণ ‘মধুপুর পৌর নির্বাচনে জনগণ নির্বাচিত হয়েছে : নব-নির্বাচিত মেয়র’
বারহাট্টায় লটারীতে কৃষক নির্বাচন ও বোর ক্রয় শুরু

বারহাট্টায় লটারীতে কৃষক নির্বাচন ও বোর ক্রয় শুরু

:: আজিজুল হক ফারুক- নিজস্ব প্রতিবেদক ::

নেত্রকোণার বারহাট্টায় প্রকাশ্য লটারীতে কৃষক নির্বাচন করে সরকারের বোর ক্রয় কার্যক্রমের সূচনা করা হয়েছে। উপজেলা উন্নয়ন কেন্দ্র মিলনায়তনে সোমবার লটারী অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও ক্রয় কমিটির সভাপতি গোলাম মোরশেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মাইনুল হক কাসেম প্রধান অতিথি ছিলেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাইমিনুর রশিদ, খাদ্য নিয়ন্ত্রক মোঃ দিলোয়ার হোসেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন আজাদ ও শাহিনুর আক্তার শায়লা, বারহাট্টা ও বাউসী খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতিকুর রহমান ও মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক মোঃ কামরুল ইসলাম, খাদ্য গুদামের সহকারি উপ-খাদ্য পরিদর্শক মোঃ শওকত আলম টিপুসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী ও গনমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন। লটারী শেষে একজন কৃষকের নিকট থেকে দুই টন ধান ক্রয় করা হয়।

ইউএনও বলেন, “যারা প্রকৃতই বোর চাষ করেছে, তারা যাতে গুদামে এসে সরাসরি বোর ধান বিক্রয় করতে পারে, সে লক্ষ্যেই কৃষি বিভাগের মাধ্যমে কৃষকের দরখাস্ত সংগ্রহ করে আজ লটারী দেয়া হয়েছে। প্রকাশ্য লটারীতে ৬২৯জন নির্বাচীত হয়েছেন। অতিরিক্ত ৬২৯ জন কৃষক অপেক্ষমান তালিকায় রয়েছেন। উপজেলায় ১ হাজার ২৫৯ টন ধান ক্রয়ের বরাদ্দ পাওয়া গেছে। নির্বাচীতদের প্রত্যেকেই আজ থেকে ৯০দিনের মধ্যে ২টন করে ধান দিতে পারবেন। ৯০দিন পর সুযোগ থাকা সাপেক্ষে অপেক্ষমান তালিকার কৃষকগন গুদামে ধান বিক্রয়ের সুযোগ পাবেন।”

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাইমিনুর রশিদ বলেন, “চলতি বছর উপজেলায় ১৫ হাজার ৭০ হেক্টর জমিতে বোর চাষ করা হয়। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১৫হাজার ৭০ মেট্রিক টন। ফলন ভাল হয়েছে। উপজেলার ৭ইউনিয়ন থেকে ১১হাজার ২০১ জন কৃষকের আবেদন পাওয়া গেছে।

চেয়ারম্যান মাইনুল হক বলেন, “ধান ক্রয়ে সর্বোচ্চ ¯^চ্ছতা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যেই লটারীর ব্যবস্থা। এরপরও কোন দূর্নীতি হলে কেউ ছাড় পাবে না। বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হলে উপজেলার আরো অনেক কৃষক উপকৃত হবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই পোর্টালের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্ব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design BY NewsTheme
error: Content is protected !!