মধুপুরে কিশোরীকে অপহরণ করে একি করলো দাদা-নাতী! থানায় মামলা

মধুপুরে কিশোরীকে অপহরণ করে একি করলো দাদা-নাতী! থানায় মামলা

- ছবি: প্রতীকী।

:: মধুপুর প্রতিনিধি ::

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার পাহাড়ী এলাকার কালিয়াকুড়ি গ্রামে জনৈক কিশোরী (১৩) কে অপহরণের পর দাদা-নাতী মিলে রাতভর ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে ওই কিশোরীর বাবা বাদি হয়ে মধুপুর থানায় মামলা দায়ের করলেও একটি মহল ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার পায়তারা করছে। ফলে অভিযুক্তরা প্রকাশ্যে ঘুরলেও পুলিশ গ্রেফতার করছে না। এ নিয়ে এলাকাল ব্যাপক চাঞ্জল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

মধুপুর থানা পুলিশ ও মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, উপজেলার ফুলবাগচালা ইউনিয়নের কালিয়াকুড়ি গ্রামের নাতী চান মিয়া (১৪) ও দাদা কবির হোসেন ওরফে কবজ (৫০) পাশের হাগুড়াকুড়ি উত্তরপাড়া গ্রামের এক কিশোরীকে গত ৩০ মে (শনিবার) দুপুরে বাড়ির পাশ থেকে অপহরণ করে নিজেদের বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে এবং দাদা-নাতী মিলে রাতভর ধর্ষণ করে। পরদিন রোববার (৩১ মে) ওই কিশোরীকে তার বাড়ির পাশে অজ্ঞান অবস্থায় ফেলে রেখে চলে যায়।

ওই কিশোরীর বাবা ও মা বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, তারা খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে খবর পেয়ে সন্ধ্যায় কবির হোসেন ওরফে কবজের বাড়িতে গিয়ে মেয়েকে ফেরত চাইলে তাদের কাছে নেই বলে জানায়। পরদিন ওই কিশোরী অসুস্থাবস্থায় বাড়িতে গিয়ে পুরো ঘটনা তার মাকে খুলে বলে। কিশোরীর অসহায় বাবা স্থানীয় মাতব্বর ও ইউপি সদস্যকে ঘটনা জানায়। পরে কিশোরীর বাবা বাদি হয়ে মধুপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা (নং-১, তাং-১/৬/২০২০ইং) দায়ের করেন।

তারা আরো বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানায়, ফুলবাগচালা ইউনিয়ন জাতীয়তাবাদী যুব দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. ফরিদ মিয়ার নেতৃত্বে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় একটি মহল নানাভাবে অপতৎপরতা শুরু করেছে। তারই অংশ হিসাবে বুধবার (০৩ জুন) সকালে সালিশি বৈঠক বসায়। বৈঠকে মাতব্বরদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও দরকষাকষির এক পর্যায়ে যুব দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. ফরিদ মিয়া ওই কিশোরীর বাবাকে বাড়ি বিক্রি করে অন্যত্র চলে যেতে হুমকি দেন। কিশোরীর বাবাকে হুমকি দেয়ায় স্থানীয় মাতব্বররা সালিশ অমিমাংসিত অবস্থায় ভেঙ্গে দেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. নওশের আলী বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, কিশোরীকে ধর্ষণের বিষয়টি এখন ওপেনসিক্রেট। ধর্ষকের ভাই বিএনপি নেতা মো. ফরিদ মিয়া প্রভাবশালী হওয়ায় তারা বিষয়টিকে ধামাচাপা দেওয়ার পায়তারা করছে। থানায় মামলা হলেও আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

অভিযুক্ত ধর্ষক কবির হোসেন ওরফে কবজ (দাদা) বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, নাতীর সাথে ওই কিশোরীর কী হয়েছে তা তিনি জনেন না।

এ ব্যাপারে মধুপুর থানার ওসি তারিক কামাল বিডি নিউজ বুক টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে জানান, এ ঘটানয় থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত হচ্ছে। আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই পোর্টালের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্ব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design BY NewsTheme
error: Content is protected !!