চীন সীমান্তে রণকৌশল বদলাচ্ছে ভারতের সেনা

চীন সীমান্তে রণকৌশল বদলাচ্ছে ভারতের সেনা

চীন সীমান্তে রণকৌশল বদলাচ্ছে ভারতের সেনা

:: আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::

গলওয়ানের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় (এলএসি) সঙ্ঘর্ষের পরিস্থিতি মোকাবিলার কৌশল বদলাতে পারে ভারতের সেনা। গত কয়েক দশক ধরেই চীন সীমান্তে মোতায়েন সেনানীদের প্রতি অলিখিত নির্দেশ রয়েছে, কোনও অবস্থাতেই প্রথমে গুলি চালানো চলবে না। কিন্তু সেনার একটি সূত্র জানাচ্ছে, চীনা ফৌজের হামলায় এক কর্নেল-সহ ২০ জন সেনার মৃত্যুর প্রেক্ষিতে সেই সিদ্ধান্ত ‘পর্যালোচনা’র সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ, সোমবার রাতে চীনা বাহিনী গুলি না-চালালেও পেরেক বসানো লাঠি আর ধারাল অস্ত্র নিয়ে টহলদার ভারতীয় সেনার উপর পরিকল্পিত হামলা চালিয়েছিল। সে ক্ষেত্রে আত্মরক্ষার প্রয়োজনে প্রথমে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের আগাম অনুমতি থাকলে ক্ষয়ক্ষতি কিছুটা কম হতো বলে মনে করছেন সেনা আধকারিকদের একাংশ।

সংঘর্ষের পরিস্থিতিতে প্রত্যাঘাতের দ্রুত অনুমতির জন্য উপযুক্ত বন্দোবস্তের প্রয়োজনীয়তা উঠে এসেছে আলোচনায়। সাম্প্রতিক সময়ে এলএসি-তে দু’তরফের সেনার হাতাহাতি, পাথর ছোড়াছুড়ি এমনকি লাঠালাঠিও হয়েছে। তাতে অল্পবিস্তর জখম হওয়ার খবরও মিলেছে। কিন্তু গলওয়ানের ঘটনায় স্পষ্ট, ‘হ্যান্ড টু হ্যান্ড কমব্যাট’কে রক্তক্ষয়ী করে তোলার জন্য পিপলস লিবারেশন আর্মির পূর্বপ্রস্তুতি ছিল। অতীতে অধিকৃত তিব্বতে বৌদ্ধদের বিক্ষোভ বা জিনজিয়াংয়ে উইঘুর মুসলিমদের প্রতিবাদ আন্দোলন দমন করতে পেরেক বসানো লাঠি ব্যবহার করেছে চীন সেনা। সোমবার রাতে ১৬ বিহার রেজিমেন্টের অফিসার ও জওয়ানদের বিরুদ্ধেও একই অস্ত্র প্রয়োগ করে তারা।

যদিও ভারতীয় সেনার সময়োচিত প্রতিরোধে রক্ত ঝরেছে হামলাকারী শিবিরেও। ভারতীয় সেনা সূত্র উদ্ধৃত করে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের দাবি, ঘটনায় চীনের প্রায় ৪৫ জন সেনা হতাহত হয়েছে। যদিও চীনের তরফে হতাহতের কথা স্বীকার করা হলেও তার সংখ্যা কত, তা স্পষ্ট করা হযনি। কিন্তু সে দেশের সরকারি সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসের এডিটর গত কালই কয়েক জন চীন সেনার নিহত ও আহত হওয়ার খবর জানিয়েছিলেন। প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহও এদিন টুইট করে বলেন, ‘‘সেনাদের বীরত্ব ও বলিদান দেশ কখনওই ভুলবে না।’’

কিন্তু ভবিষ্যতে এই ধরনের ঘটনা এড়ানোর জন্য রণকৌশলগত কিছু পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে মনে করছেন ভারতের প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের অনেকেই। একটি সূত্রের খবর, গলওয়ানের সংঘর্ষে গুরুতর জখম ১৭ জন সেনাকে প্রতিকূল আবহাওয়া ও উচ্চতাজনিত কারণে সময়মতো উদ্ধার করে চিকিৎসা করানো সম্ভব হয়নি। ফলে তাঁদের মৃত্যু হয়। শুধু লাদাখ নয়, গালওয়ানের ঘটনার জেরে সিকিম এবং অরুণাচল প্রদেশের সীমান্তেও যে কোনও সময় উত্তেজনা ছড়ানোর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। ড্রাগনের নিঃশ্বাস ঝেড়ে ফেলতে তাই কার্যকরী ব্যবস্থা নেওয়ার ভাবনা এখন সেনার অন্দরে।

আনন্দবাজার থেকে নেওয়া

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই পোর্টালের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্ব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design BY NewsTheme
error: Content is protected !!