কুরবানীর গরু কিনতে এসে মান্দার প্রতারক চক্রের শিকার ৪, আটক -২

কুরবানীর গরু কিনতে এসে মান্দার প্রতারক চক্রের শিকার ৪, আটক -২

মাহবুবুজ্জামান সেতু- :: মান্দা প্রতিনিধি ::

কুরবানীর গরু কিনতে এসে নাটোরের ৪ ব্যক্তি
মৈনমের ডলার ব্যাবসায়ীদের প্রতারনার শিকার হয়েছেন বলে জানা গেছে।

তারা হলেন, নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার গোড়াতনপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে হাসান ইমাম (৩২), শেরকৈ গ্রামের আবুল কালামের ছেলে ছানোয়ার হোসেন (৩৫), ইটানী গ্রামের সুজন কুমার (৩০) ও রানীনগর গ্রামের ইব্রাহীম আলীর ছেলে সবুজ (৩০)।

এ ঘটনায় সিংড়ার সবুজ বাদি হয়ে মান্দা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতারক চক্রের দুই সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুলাই) রাতে উপজেলার মৈনম ইউনিয়নের মংলাপাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, মান্দার মৈনম ইউনিয়নের মংলাপাড়া গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে প্রতারক আব্দুস সালাম সরদার (৫৫), এবং কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার কুচুটি গ্রামের ইয়াছিন মিয়ার ছেলে প্রতারক এরশাদুল্লাহ (৪৮)।

প্রতারক চক্রের দুই সদস্যকে আটক করার সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের সহযোগী মংলাপাড়ার এনামুল, বাবলু ও রশিদ পালিয়ে যায়।’

স্থানীয় ভূক্তভোগীরা জানান, মান্দা উপজেলার অন্তর্গত মৈনম মংলাপাড়া গ্রামের দীর্ঘ দিনের চিহ্নিত ডলার ও পাথরের মূর্তি ব্যাবসায়ী, প্রতারক চক্রের গডফাদার এবং জাল দলিল করে অন্যের সম্পত্তি দখলকারী ভূমিদস্যু এনামুল হক, আটককৃত আব্দুস সালাম ও কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা এরশাদুল্লাহকে একটি তক্ষক বিক্রির কথা বলে সিংড়ার হাসান ইমাম, ছানোয়ার, সুজন ও সবুজকে ডেকে নিয়ে তাদের কাছ থেকে অভিনব কৌশলে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

কিন্তু পরবর্তীতে তাদের সাথে বিভিন্নভাবে তালবাহানা শুরু করায় তারা থানা পুলিশের স্মরণাপন্ন হন।

এরপর মৈনম মংলাপাড়ায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক আব্দুস সালাম এবং কুমিল্লার এরশাদুল্লাহকে আটক করাসহ নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার গোড়াতনপাড়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে হাসান ইমাম (৩২), শেরকৈ গ্রামের আবুল কালামের ছেলে ছানোয়ার হোসেন (৩৫), ইটানী গ্রামের সুজন কুমার (৩০) ও রানীনগর গ্রামের ইব্রাহীম আলীর সবুজ (৩০) কে
পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়।

পুলিশি হেফাজতে থাকা সিংড়ার হাসান ইমাম জানান, ‘সহযোগী সবুজ রাজশাহীর সিটি হাটে গরু কিনতে এসে আব্দুস সালামের সঙ্গে পরিচয় হয়। ভাল জাতের গরুর প্রলোভন দিয়ে সালাম তার বাসায় সবুজকে নিয়ে যান। বায়না হিসেবে সবুজের নিকট থেকে ৫০ হাজার টাকাও নেয়া হয়। কিন্তু গরু না দিয়ে টালবাহানা করতে থাকলে আমাকে সংবাদ দেন সবুজ। পরে আমি ছানোয়ারকে সঙ্গে নিয়ে একটি মাইক্রোবাসে সালামের বাড়িতে আসি। পরে পুলিশ আমাদের সেখান থেকে উদ্ধার করে।’

এব্যাপারে মান্দা থানার ওসি -তদন্ত রহমান সরকার বলেন, ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের দুই জনকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনাগত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© এই পোর্টালের কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্ব অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Design BY NewsTheme
error: Content is protected !!